ForeverMissed
This memorial website was created in memory of our loved one, Mahbubur Syed, 69 years old, born on April 5, 1952, and passed away on April 14, 2021.

He attended intermediate at Momenshahi Cadet College (cadet #19 - 2nd batch - joining in 8th grade on January 9, 1965). His roommates describe him as always smiling and a humble and polite student who never got in trouble. Mahbub spent one year at BUET in the EE department, before departing in 1972 on scholarship for education in Budapest, Hungary. He received his Ph.D. from the Technical University of Budapest in 1980. He returned to Bangladesh in 1982, after 10 years in Hungary, and served on the faculty at BUET until 1992, including as the founding Chairman of the Computer Science and Engineer department. He supervised over 30 Masters' thesis while at BUET and received the Young Excellent Scientist award from UNESCO. He married Sharifun Nessa Syed in 1983 and they had one son, Tahin Syed, born in 1990.

In 1992, the family emigrated to Australia, where Mahbub served on the faculty of Monash University, where he continued research and supervised Ph.D. students. In 1999, the family again moved, to the United States. After 1 year as a Visiting Professor at North Dakota State University in Fargo, ND, he moved to Minnesota State University, in Mankato, MN. He served at the University for more than 20 years, including being elected Chair of the Department of Computer and Information Sciences twice, serving 4.5 years in that capacity since 2016.

His colleagues have all described him using the same words: smiling and simple. He was very close to his family in Bangladesh and was a loving husband and father. We will remember him forever. He is buried in the Garden of Eden Islamic Cemetery in Burnsville, MN. He is survived by his wife, who works as an Institutional Research Specialist at the same university, after completing several degrees with Mahbub's help, and son, who is a Data Scientist at Amazon after MIT graduate school.
Posted by charles waters on May 7, 2021
It was an honor for me to know Mahbub. His genuine devotion to ensuring the success of students, colleagues, friends, and the various universities at which he worked is 2nd to none. Behind his many successes in life was an extraordinary (unparalleled) amount of hard work. Basically, Mahbub was a fixture on the 2nd floor of the Wissink building at MSU. No matter what time of the day (most days close to midnight), day of the week (including Saturdays and Sundays), the weather (including subzero temperatures) one could find Mahbub hard at work. I can remember him climbing the stairs to the 2nd floor of Wissink with his glasses frosted over, his face pink, and of course, a big smile on his face. He laughed heartily at a good joke. I never heard him say a negative work about anyone. He was always willing to interrupt his work for a good chat.
I got to know a personal side of Mahbub when I watched a video of an extended family celebration that took place in Bangladesh. There were lots of singing, pageantry and people adorned in beautifully colored clothing. What I did not expect is that Mahbub was often the center of attention singing many solo songs. The happiness expressed in his face was impossible to overlook. It was clear he was loved by all and that he loved everyone.
I regret not getting to know Mahbub better. He was an honorable and honest man. He was a man in the truest sense of the word.
Charles Waters
Posted by MOHAMMAD PATWARY on May 4, 2021
I met Dr. Mahbubur Syed first time at Minnesota State University, Mankato in 2014 where I went for my graduate studies. I had a lot of good memories with him. He was a simple, kind, and generous person. It is difficult to bear his sudden demise at this age. May Almighty rest him in eternal peace.
Posted by Mezbah Rahman on May 4, 2021
I first met Dr. Mahbubur Syed in December 1999 when he came to join at Minnesota State University. We basically interviewed for our respective jobs at the same time and he joined a semester later. During his moving period, weather was bad, he went to ditch and never liked driving during Winter months in Minnesota.

We became very good friends and he became a mentor of mine. He would spend hours helping me or any other individual sought help from him. He was very kind person. He was very hard working and sincerest person I ever known.

He used to joke a lot in our social gatherings. He was always with smiling face even during our disagreements. Most of the time his disagreements were not real as he loved to argue.

We will miss him very much. We still can't believe that he is no longer with us.

We wish his peace in his grave and in his afterlife.
Posted by Tania Rahman on May 4, 2021
Mahbubur Rahman Syed was very simple, friendly, and nice person. He was not only a friend, he was as like as our elder brother.
Posted by Michael Wells on May 3, 2021
I worked with Mahbub for over 20 years in the CIS Department. He was my colleague and friend. I still cannot believe he is gone. I'll miss is clever sense of humor and advocacy for our department. My thoughts and prayers go out to his family, especially his wife and son. Rest in peace Mahbub.
Posted by J V on April 29, 2021
Mahbub's childhood roommates describe him "as always smiling and a humble and polite student who never got in trouble." As an adult, he was as smiling, humble, and polite as ever, but as a department chair, he was willing to get into a little trouble if it meant defending his students, his colleagues, or his department. He was a kind man, an inspiring teacher, and a good and dependable colleague. We will miss him.
Posted by Anne Dahlman on April 28, 2021
Mahbub was a dear colleague at MSU. Mahbub was one of the hardest working professors on campus. He was a strong advocate for students and was always ready to work hard with others to make the campus a better learning environment. I valued Mahbub's honesty, brilliance, and camaraderie. He was a kind man and always took the time to stop and connect with you. I was inspired by the way Mahbub talked about his family. My heart is broken - we've lost a special one.
Posted by Brenda Flannery on April 27, 2021
When I think of Mahbub, it is his wide smile and his passion for his work that comes immediately to mind. I began working with him around 2007 to develop curriculum and last worked with him to develop the innovative and interdisciplinary gaming program. He was creative, innovative and always focused on a great educational experience for students. He will be deeply missed but his legacy will be long. My sympathies to his family, especially his wife and son.
Posted by Brian Martensen on April 27, 2021
I worked with Mahbub for many years, closely during his time as chair of his department, on many wonderful projects that supported our faculty and students. 

But what I remember most in my mind when I think of Mahbub is his wonderful smile and laughter. Even in the most challenging of situations, he always could add a levity, often paired with fabulous insight and wisdom.
Posted by Christophe Veltsos on April 27, 2021
Professor Mahbub Syed was an inspiration to many. He was a force for good, shaping students, fellow faculty colleagues, and yes, even administrators.

I will forever think of him as a mix of the elements of water and rock. Like a rock, he was immovable in his focus on serving students. Like water, he cared for and nourished the CIS department, its students, and its faculty.
Posted by Prof Dr Muhibul Haque Bhu... on April 27, 2021
মাহ্‌বুব স্যারের উপর আমার একটি ফেসবুক পোস্ট শেয়ার করছি। আমি কিছু ছবিও আপলোড করেছি।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. সৈয়দ মাহবুবুর রহমান আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।
স্যার গত ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে ICCIT2019-এ একজন আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে এসেছিলেন। অবশ্য স্যার এই কনফারেন্সের রিসার্চ ইন্টিগ্রিটি কমিটির চেয়ার ছিলেন। আমি স্যারকে এর আগে কখনোই দেখি নাই। সেই কনফারেন্সেই প্রথম দেখা। সেই প্রথম দেখাতেই স্যারের কথা আর ব্যবহারে আমি একেবারে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। বিভিন্ন বিষয়ে অনেক গল্প করলেন। যাওয়ার আগে আমাকে আর আমার কলিগদের জন্য উনার বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম (মিনোসোটা স্টেট ইউনিভার্সিটি) লিখা অনেকগুলো কলম উপহার দিয়ে গিয়েছিলেন। আর বলেছিলেন, তোমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক আগে একবার এসে আমি একটি সেমিনারে বক্তব্য দিয়েছিলাম। সেটা ইউটিউবে খুঁজে দেখতো পাও কি-না, পেলে আমাকে লিঙ্কটি পাঠিয়ে দিবা আর কনফারেন্সের সকল ছবি গুগল ড্রাইভে দিয়ে সেটারও লিঙ্ক পাঠিয়ে দিবা। আমি ইউটিউব লিঙ্কটি পাঠিয়ে দেয়ার পরই স্যার আমাকে একটি রিপ্লাই ইমেইল দিলেন যেটাতে আমি খুব অভিভুত হয়ে গিয়েছিলাম। সেটা নিচে দিলাম আর সেই সাথে স্যারে কিছু ছবি। আল্লাহ্‌ স্যারকে জান্নাতুল ফিরদাউস নসীব করুন।
My email:
=============
Dear Sir,
Assalamu alaikum.
I found your video at the following link:
https://www.youtube.com/watch?v=tk0zQs_Kl2Y
Best regards,


Reply of Mahbub Sir:
==================
Dear Dr. Bhuyan,
Thank you for sending me the link. I must recognize your expertise in searching.
Thank you for your hospitality during ICCIT 2019 conference. It was very well organized and you deserve the full credit as the organizing chair. I have witnessed firsthand your availability everywhere to manage the conference to run very smoothly and on time. Congratulations on your success. You must be very tired by now. You deserve few days of complete rest.
However, there is the last test – the picture test J. Please let us know when and how we can get access to the conference pictures (full resolution).
Thank you again.

Best regards.
Mahbub
Posted by Shaheen Ahmed on April 26, 2021
Mahbubur Rahman Syed – my mentor and friend since I joined at Minnesota State University Mankato in 2015. After joining at MSU, anytime I have any question on anything, he was the person I used to go. He always took time to answer with details. He always gave me the right answer even though I did not ask the right questions. As always, he has his smile with him all the time. He never said busy help me out with anything. I will miss him forever. I know that he is smiling now up there! Thank You - Mahbubur Rahman Syed. I will never be able to repay you what you have done for me. With your guidance – I am getting success everyday now and will be in the future. You are never gone from me. You are always in my heart!

Your friend,
Shaheen Ahmed
Posted by Mahmuda Naznin on April 25, 2021
Some days after we started our class in CSE, we found something went wrong and we went to a protest against some injustice happened to sir. We relalized and found that sir was very popular among our senior batches. We saw sir always as a very calm and ever smiling face. We found that our teachers used to like him very much. In 2001, I went to North Dakota State University. Oneday, my PhD adviser was praising that there was a talented faculty from your department CSE, BUET. Then I found, the person was Mahbub sir. And interestingly I found a big group of BUET students and some of our alumni there. I felt- wherever sir worked, sir created some impact and opportunities for the students. It is easy to travel a known path. But taking initiative for unknown path- building a new department was not easy. We are ever grateful to sir. May Allah give him Jannatul Firdous.
Posted by Mohammad Shahab Uddin on April 23, 2021
With our broken hearts (me and my wife Selima) I am writing this tribute note for Syed Mahbubur Rahman.
We had long association with his family. It started from BUET campus in 80's. When both of us were teaching. Afterwards, I left Bangladesh with my family to teach at National University of Singapore in 1986.
In later year, Mahbub and Tara Bhabi stayed in our house in Singapore for some time for medical treatment at National University Hospital. After they left for Australia and North America, we didn't have contact. But we knew his activities through my friend Dr. Alamghir Mohiuddin Khan (Mahbub's brother-in-law). Just in last month, while me and my wife are visiting our son and his family in New York, we communicated over telephone with Mahbub and Tara Bhabi several times. Last one in two weeks back.
Then we got the shocking news in only week. It was totally unbelievable.
We pray to Allah SWT to grant him Jannatul Firdous and give his family mental strength to bear the loss and move forward in this earthly life. Ameen.
Shahabuddin/Selima
Posted by Jerry Oman on April 23, 2021
I got to know Mahbub first in my role at the university and by serving with him on various committees. I got to know him more so when I became a colleague of Sharifun in Institutional Research. I knew him as someone who was passionate about helping students and others and more importantly as a loving and caring father, husband and friend. He will be sorely missed by all that knew him.
Posted by Manzur Murshed on April 22, 2021
অনেকের স্মৃতিচারণে এসেছে, আমরা যারাই স্যার এর নিবিড় সান্নিধ্য পেয়েছি তাদের অনেকেই ভেবেছি, আমিই স্যার এর সবচেয়ে প্রিয়পাত্র। এমনটি কেবল মাত্র সকলের প্রতি পক্ষপাতশূন্য মনোসংযোগ, কোমল হৃদয়, নির্মোহ জীবনাচার আর নিঃস্বার্থ পরোপকারী মনের মানুষের পক্ষেই অর্জন করা সম্ভব। নিশ্চয়ই মহান সৃষ্টিকর্তা স্যারকে তাঁর প্রিয়পাত্রদের দলের অন্তরভুক্ত করবেন, এই আমাদের প্রার্থনা।

Leave a Tribute

 
Recent Tributes
Posted by charles waters on May 7, 2021
It was an honor for me to know Mahbub. His genuine devotion to ensuring the success of students, colleagues, friends, and the various universities at which he worked is 2nd to none. Behind his many successes in life was an extraordinary (unparalleled) amount of hard work. Basically, Mahbub was a fixture on the 2nd floor of the Wissink building at MSU. No matter what time of the day (most days close to midnight), day of the week (including Saturdays and Sundays), the weather (including subzero temperatures) one could find Mahbub hard at work. I can remember him climbing the stairs to the 2nd floor of Wissink with his glasses frosted over, his face pink, and of course, a big smile on his face. He laughed heartily at a good joke. I never heard him say a negative work about anyone. He was always willing to interrupt his work for a good chat.
I got to know a personal side of Mahbub when I watched a video of an extended family celebration that took place in Bangladesh. There were lots of singing, pageantry and people adorned in beautifully colored clothing. What I did not expect is that Mahbub was often the center of attention singing many solo songs. The happiness expressed in his face was impossible to overlook. It was clear he was loved by all and that he loved everyone.
I regret not getting to know Mahbub better. He was an honorable and honest man. He was a man in the truest sense of the word.
Charles Waters
Posted by MOHAMMAD PATWARY on May 4, 2021
I met Dr. Mahbubur Syed first time at Minnesota State University, Mankato in 2014 where I went for my graduate studies. I had a lot of good memories with him. He was a simple, kind, and generous person. It is difficult to bear his sudden demise at this age. May Almighty rest him in eternal peace.
Posted by Mezbah Rahman on May 4, 2021
I first met Dr. Mahbubur Syed in December 1999 when he came to join at Minnesota State University. We basically interviewed for our respective jobs at the same time and he joined a semester later. During his moving period, weather was bad, he went to ditch and never liked driving during Winter months in Minnesota.

We became very good friends and he became a mentor of mine. He would spend hours helping me or any other individual sought help from him. He was very kind person. He was very hard working and sincerest person I ever known.

He used to joke a lot in our social gatherings. He was always with smiling face even during our disagreements. Most of the time his disagreements were not real as he loved to argue.

We will miss him very much. We still can't believe that he is no longer with us.

We wish his peace in his grave and in his afterlife.
Recent stories

সরলতা ও দায়িত্ববোধ -মোহাম্মদ তারিক আল জলিল

Shared by Latifur Khan on May 5, 2021
সরলতা ও দায়িত্ববোধ

                                          -মোহাম্মদ তারিক আল জলিল



আমি তখন অনেক ছোটো, স্কুলে পড়ি। ছোটো মামা (সৈয়দ মাহবুবুর রহমান) হাংগেরী থেকে বাংলাদেশে কিছুদিনের জন্য বেড়াতে আসবেন । ছোটো বড় আমাদের সবার মাঝে আনন্দের আর শেষ নেই। তখন এয়ারপোর্ট ছিল তেজগাওতে। সবাই মিলে এয়ারপোর্ট গিয়েছিলাম মামাকে রিসিভ করতে। মামারা ছিলেন চার ভাইবোন। তার মধ্যে আমার আম্মা ছিলেন ভাই-বোনদের মধ্যে সবার বড়। আর মামা ছিলেন সবার ছোটো। তাই ছোটো মামা বরাবরই ছিলেন সবার আদরের এবং প্রিয়। আমাদের সাথেও ছিলেন খুবই বন্ধুবৎসল। উনি যখন বিদেশ থেকে দেশে আসতেন বড়ছোটো সবার জন্যই নাম ধরে ধরে কিছু না কিছু নিয়ে আসতেন।

উনার চরিত্রের আরেকটা অন্যতম সুন্দর দিক ছিল কেউ কিছু বুঝতে চাইলে উনার মধ্যে এমন একটা ভাব ছিল যেন ঐ বিষয়ে উনি কিছুই জানেন না। কোনো কিছু জানার জন্য গেলে আগে পরখ করে নিতেন আমি কতটুকু জানি এবং এই কাজটা এমন ভাবে করতেন যেন আমি না বুঝি। একদিন বুয়েটে থাকা কালীন বিশ্বদ্যালয়ের বাসভবনে গিয়েছি। দেখি ড্রইং রুমে একজন ছাত্র বসে আছে। আমাকে বললেন, তুমি একটু অপেক্ষা কর, আমি ওকে বিদায় দিয়ে তারপর তোমার সাথে কথা বলবো। আমি লক্ষ্য কোরলাম ছাত্রটি এসেছে কিছু একটা বুঝার উদ্দেশ্যে। কিন্তু উনি ছাত্রের সাথে এমন ভাবে কথা বলছেন যেন ওই বিষয় নিয়ে মামার তেমন কোনো ধারণা নাই। সবকিছু ওর থেকেই খুটিয়ে খুটিয়ে বের করলেন। পরে হাসি হাসি মুখ করে বললেন, “তুমিতো দেখি আমার থেকেও ভালো জানো। তো আমার কাছে কি জানতে এসেছো। তুমিতো দেখি সবই পারো”। ছাত্রটিও অনেকটা অবাক হয়েই বসে থাকে । এভাবেই উনি পড়াশোনাকে একটি গেইমের মতো করেই সহজ করে বুঝিয়ে দিতেন।

তিনি সব সময়ই ছিলেন অত্যন্ত দায়িত্ববান। যেমন ছিলেন পরিবারের প্রতি তেমনি দেশের প্রতি। তিনি যেহেতু মুক্তিযুদ্ধকে অনেক সামনে থেকে দেখেছেন, সেইসাথে প্রত্যক্ষ না হলেও পরোক্ষভাবে অংশগ্রহনও করেছিলেন। তাই উনার মাঝে সব সময়ই দেশের জন্য কিছু করার একটি তাগিদ অনুভব করতেন। তাইতো তিনি পড়াশোনা শেষ করে দেশেই থাকতে চেয়েছিলেন এবং দেশে উনার কাজের কিছু নিদর্শন রাখতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সে আর হলো না। কেন হলোনা সেদিকে আর না গেলাম। সেটা সবারই জানা। কিন্তু আমি উনার একটি উদ্ভাবনের কথা বলতে চাই, যেটা তিনি আমাদের সাথে শেয়ার করেছিলেন। যা শুনে আমরা যেমন পুলকিত এবং আনন্দ অনুভব করেছিলাম তার চেয়ে বহুগুন বেশি আনন্দ উনার মধ্যে দেখেছিলাম। অর্থাৎ তিনি বাংলা ফন্ট নিয়ে যে কাজটি করেছিলেন। সেখানেও উনার সরলতার সুযোগ নিয়েছেন অনেকেই।

উনি কথা বলার সময় খুব রসিকতা করতেও পছন্দ করতেন। আমি সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত আছি । সেই সুবাদে আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে উনাকে আনার সৌভাগ্য হয়েছিল। গত ২০১৫-তে যখন তিনি বাংলাদেশে বেড়াতে আসলেন তখন উনাকে প্রস্তাব দিলাম আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে একটা প্রোগ্রাম করার জন্য। উনি সাথে সাথেই রাজি হয়ে গেলেন এবং রসিকতা করে জানতে চাইলেন, “আমিতো ওদের নিয়েই কাজ করতে চাই, কিন্তু আমি যে বিষয় নিয়ে কথা বলবো ওরা ধৈর্য নিয়ে শুনবেতো নাকি পিছনের দরজা দিয়ে বের হয়ে চলে যাবে?” সেইদিন তিনি “ক্লাউড সার্ভার” নিয়ে প্রায় দুই ঘন্টার একটি প্রেজেন্টেশন দেন। সেই অনুষ্ঠানে শ্রদ্ধেয় প্রফেসর কায়কোবাদ স্যারও উপস্থিত ছিলেন। সেইদিন দুইজনকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। ছাত্র-ছাত্রীরা মন্ত্রমুগ্ধের মতো পুরো অনুষ্ঠান উপভোগ করেছিল। ছাত্র-ছাত্রীরা এতোটাই মুগ্ধ ছিল যে পরবর্তীতে উনাকে আবার আসার প্রতিশ্রুতি দিয়ে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করতে হয়েছিল।

আমি সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মকর্তা হিসেবে গর্ববোধ করেই বলছি, গত ২০১৯ সালে শেষবারের মতো যখন ছোটমামা বাংলাদেশে আসেন, তখন তিনি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত তিনদিন ব্যাপি আন্তার্জাতিক সম্মেলন ICCIT-2019 এ একজন আমান্ত্রিত অতিথি হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। উনি প্রতিদিনই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত (অনুষ্ঠান শেষ না হওয়া পর্যন্ত) সম্মেলনে উপস্থিত থেকেছেন। এতে আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্মানিত বোর্ড মেম্বারগণ এবং ভাইস চ্যান্সেলরসহ সবাই খুব সন্মানীত বোধ করেছেন, সেই সাথে উনার বন্ধুসুলভ আচরন সবাইকে মুগ্ধ করেছে।

ড. সৈয়দ মাহবুবুর রহমানকে নিয়ে লিখতে গেলে অনেক কিছুই লিখা যায় । কিন্তু এতো কিছু লিখতে গেলে অনেক সময় পার হয়ে যাবে । কিন্তু লেখা আর শেষ হবে না। তিনি নিজেই একটি প্রতিষ্ঠান সেই সাথে একটি সম্পদ। যাকে আমরা ধরে রাখতে পারিনি। এমনকি উনার মেধাকেও কাজে লাগাতে পারিনি। এটা আমাদেরই ব্যর্থতা সেই সাথে দুর্ভাগ্যও বটে। এতো তাড়াতাড়ি সৃষ্টিকর্তা উনাকে নিয়ে যাবেন সেটা আমরা ভাবতেও পারিনি। পরিশেষে উনার রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং মহান রাব্বুল আল আমী্নের কাছে প্রার্থনা করছি উনাকে যেন জান্নাতুল ফিরদাউস দান করেন। আমীন।

স্মৃতিতে ছোট চাচা (ড. সৈয়দ মাহবুবুর রহমান) -সৈয়দা তাহমিনা তাবাসসুম

Shared by Latifur Khan on May 5, 2021
স্মৃতিতে ছোট চাচা

(ড. সৈয়দ মাহবুবুর রহমান)

-সৈয়দা তাহমিনা তাবাসসুম



১৫-ই এপ্রিল ’২১ সকালটা ছিল প্রতিদিনের মতই সুন্দর-স্বাভাবিক। ৭:৩০ মিনিটে ছোটবোন লোপার ফোনকল। ছোট চাচা আর নেই। আমি কি ভুল শুনছি? তিন চার বার করে একই কথা জিজ্ঞেস করছি-“কি বললি”? এ যেন বিনা মেঘে বজ্রপাত। ক’দিন থেকে চাচার শরীরটা ভালো যাচ্ছিল না। আগের রাতে খবর পেলাম বেশী অসুস্থ। ভাবলাম উন্নত দেশ, ডায়াগনোসিস হয়ে গেছে- আল্লাহ ভরসা। কিন্তু যা শুনলাম- নিজেকে বিশ্বাস করাতেই অনেকটা সময় ব্যয় করেছি। সুন্দর সকালটা বিবর্ণ হয়ে গেল।

ছোটচাচা যখন হাঙ্গেরীতে পড়তে যান তখন আমি খুবই ছোট। ’৭৫ সালে একবার বাংলাদেশে এসেছিলেন কিন্তু তখনকার কোন স্মৃতিই আমার মনে নেই। অল্প অল্প মনে পড়ে ছোটবেলায় যখন বুঝতে আরম্ভ করেছি, ছোট চাচা বলতে একমুখ দাড়ি-গোফ ভর্তি ছবিতে চাচা, আর আমার আব্বু-আম্মুকে লেখা চিঠিগুলোকেই বুঝতাম। চাচা হাঙ্গেরী থেকে যখন একেবারে দেশে ফেরেন, প্রকৃতপক্ষে তখন থেকেই চাচার সাথে আমার পরিচয়। আমার আব্বুরা চার ভাইবোন। আমি তাদের বড় ভাইয়ের মেয়ে। বংশের প্রথম সন্তান হওয়ায় সবার কাছে অত্যন্ত আদরের ছিলাম আমি- তেমনি ছোট চাচার কাছেও। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি আড়ম্বরহীন-সাদামাটা জীবনযাপনে অভ্যস্ত থাকলেও তাঁর মধ্যে যে মানবীয় গুণাবলীর সমন্বয় ঘটেছিল তা, অনেক বড় বড় মানুষের মধ্যেই অনুপস্থিত। বাহ্যিক পরিপাট্যে তিনি ছিলেন অতি সাধারণ তবুও উনার সান্নিধ্যে আসার পর মনে হত অসাধারণ। উনার কাছ থেকে শেখার অনেক কিছুই ছিল।

আমার আব্বুর প্রতি ছিল তার অগাধ সম্মান ও শ্রদ্ধাবোধ। চাচা তখন সবেমাত্র হাঙ্গেরী থেকে ফিরেছেন। আমাদের বাসায়ই আছেন। কোন একটি কারনে আব্বু চাচার উপরে রাগ করেছেন। বারবার কিছু একটা বুঝাতে চেষ্টা করছেন। চাচা মাথা নিচু করে বসে আছেন। আম্মু বারবার এ প্রসঙ্গ বাদ দিয়ে দু’জনকেই ঘুমোতে বলেছিলেন। রাত ১:৩০ মিনিট পর্যন্ত এ দৃশ্য অবলোকন করে আমি ঘুমিয়ে পড়েছি। ভোর ৫:০০ মিনিটে ঘুমথেকে উঠে দেখি আব্বু চাচাকে তখনও বুঝিয়েই চলেছেন। আর চাচা একই ভঙ্গিতে বসে আছেন। এই সারারাতে তিনি কখনও আব্বার সাথে কোন বিতর্কে যাননি। পরে অবশ্য আম্মু চাচাকে এ অবস্থা থেক উদ্ধার করেন।

চাচাকে কখনও কারোর সাথে তর্ক-বিতর্কে জড়াতে দেখিনি, কারোর সাথে উঁচু গলায় কথা বলতেও দেখিনি। বরং ঠান্ডামাথায় আস্তে আস্তে বিষয়টাকে এমনভাবে উপস্থাপন করেছেন যে, একসময় সকলেই তার সাথে একমত হয়েছে।

আমার আম্মু একটি স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক ছিলেন। আমার আম্মুকে ছোটচাচা খুব শ্রদ্ধা করতেন। চাচা যা কিছুই করতেন, সবকিছু আম্মুর সাথে শেয়ার করা তার চাই-ই। চাচা যখন বুয়েটে সিএসই ডিপার্টমেন্ট গুছাচ্ছিলেন প্রায়ই দুপুর বেলায় আম্মুকে ফোন করে বলতেন-

Ø ভাবী এখনই আসেন। দেখেন, আমি আমার কাজটা কতটুকু - কি করলাম একটু সাজেশন দিয়ে যান।

Ø মাত্র স্কুলথেকে এসে রান্না ঘরে ঢুকলাম, এখন কিভাবে আসবো?

Ø কিচ্ছু হবে না, যেমন আছেন, তেমনই আসেন। একটু দেখে যান।



হাঙ্গেরীতে থাকাকালীন সময়েও ছোটচাচা তার সকল কর্মকান্ডের বিবরণ দিয়ে আম্মুকে চিঠি লিখতেন। সেই চিঠির কলেবর আব্বুর কাছে লিখা চিঠির থেকেও অনেক অ-নে-ক বড় ছিল।

বর্তমানে কভিড-১৯ এর সময়েও চাচা’র উদ্বিগ্নতা ছিল আব্বু-আম্মুকে ঘিরে। সবসময় আমাকে, আমার ভাই-বোনদের এবং আমার কাজিনদেরকে তার উদ্বেগের কথা উল্লেখ করে বলতেন-

Ø মিয়াভাই-ভাবীকে সাবধানে রেখো। কোন জনসমাগমে, অনুষ্ঠানে এমনকি কোনপ্রকার পারিবারিক অনুষ্ঠানেও নেয়া যাবে না।

অথচ এতো উদ্বিগ্নতা যাদের জন্য তারাই রয়ে গেলেন এই পৃথিবীর বুকে, চাচার স্মৃতি রোমন্থন করে চোখের জল ফেলার জন্য। আর তিনি এখন শুধুই ছবি ও স্মৃতি, যদিও তার কীর্তি এই পৃথিবীর বুকে চিরদিনই অম্লান হয়ে থাকবে।

ছোট বেলায় কবিতা মুখস্থ করা ছিল আমার জন্য অনেক কঠিন। আমার আম্মু সবসময় অনেক ধরণের প্রক্রিয়া অবলম্বন করে আমকে কবিতা মুখস্থ করাতেন। একদিন চাচা আমাদের বাসায় মা-মেয়ের এহেন পরিস্থিতি দেখে বললেন,

Ø আমি একটু দেখিয়ে দেই।

উনি আমাকে প্রতিটি বাক্যের শব্দগুলো দিয়ে কথামালা তৈরী করে অল্প কিছুক্ষনের মধ্যেই আমার কবিতা মুখস্থ করিয়ে ফেললেন।

আমি ও আমার ছোটভাই চাচা দেশে থাকাকালীন প্রতিবছর ২০-শে ফেব্রুয়ারী বিকেল বেলা চাচার বুয়েট-কোয়ার্টার এর বাসায় চলে যেতাম ২১-শে ফেব্রুয়ারীর অনুষ্ঠানমালা খুব কাছে থেকে দেখার জন্য। সেবার আমি অষ্টম শ্রেণীতে পড়ি। ২২ তারিখ আমার গণিত ক্লাস-টেষ্ট। আমি বরাবরই এই বিষয়টিতে দুর্বল। সবই দেখা হলেও বিপত্তি হ’ল একটি এক্সট্রা নিয়ে। যাওয়ার সময় আম্মু চাচার কাছথেকে সেটি বুঝে আসতে বললেন। আমি চাচাকে দেখালাম। চাচা আমাকে জ্যামিতির নানান সংজ্ঞা, কোণ, বর্গ, কর্ণ ইত্যাদি জিজ্ঞাসা করলেন। আমি চিন্তা করলাম এতো কিছু জিজ্ঞাসা করার কি আছে, এক্সট্রাটি একটু সমাধান করে দিলেই তো হয়। কিন্তু চাচা আমার মুখ দিয়ে বলিয়ে বলিয়ে এক্সট্রাটি সমাধান করেছিলেন। বড় হয়ে বুঝতে পেরেছি আসলে এটি ছিল চাচার পড়ানোর অভিনব কৌশল।

আমার এখনও স্পষ্ট মনে আছে, আমার এসএসসি পরীক্ষার সময় স্কুলের বিদায় অনুষ্ঠানে আমার গাওয়া গান সিলেকশন নিয়ে যখন সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছিলাম- চাচা তখনও আমাকে উদ্ধার করেছিলেন। চাচার ভাষ্যমতে-

Ø সবসময় গতানুগতিক গান না গেয়ে একটি আধুনিক গান গাইলেই তো হয়। এই যেমন ‘একগোছা রজনীগন্ধা হাতে নিয়ে বললাম, চললাম ......’।

প্রতিটি ক্ষেত্রেই চাচার চিন্তা ছিল অত্যন্ত আধুনিক।

আমাদের বাচ্চাদের সাথে চাচা-চাচীর ছিল বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। আমাদের তিন ভাই-বোনের বাচ্চাদের সাথেই শুধু নয়- আমাদের কাজিনদের বাচ্চাদের সাথেও ছিল তাদের মধুর সম্পর্ক। বাচ্চারা উন্মুখ হয়ে অপেক্ষা করতো তাদের আসার জন্য। চাচী বাচ্চাদের দিয়ে ছাদে গাছ লাগানো থেকে শুরু করে নানা ধরণের প্রতিযোগিতা আয়োজন করতেন। ২০১৯-এর ডিসেম্বর ছিল চাচা-চাচীর একসাথে শেষবারের মত বাংলাদেশ ভ্রমণ। সেবার চাচা সাথে করে একটি কারাওকে নিয়ে এসেছিলেন। তাই দিয়ে প্রায় প্রতিদিনই সন্ধ্যায় বাচ্চাদের মধ্যে উপস্থাপনা, কবিতা আবৃতি বা গানের প্রতিযোগিতা আয়োজন করতেন এবং সুন্দর সুন্দর পুরস্কার দিতেন। সেই সাথে নিজেও শিশুর মত ওদের সাথে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতেন। এমন-ই কতো স্মৃতি আজ শুধুই স্মৃতি হয়ে গেলো ছবি আর ভার্চ্যুয়াল মিডিয়ায়।

২০১৪ সাল থেকে প্রায় প্রতি বছর ২৫-শে ডিসেম্বর পারিবারিক মিলন-মেলার আয়োজন করা হলেও চাচা শুধুমাত্র দু’বার অংশগ্রহণ করতে পেরেছিলেন। মিলন-মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের রিহার্সেলে চাচার স্ব-প্রণোদিত অংশগ্রহণ ছিল আমাদের প্রেরণা। সেখানেও চাচা মধ্যমনি-ই থাকতেন।

“পুষ্প আপনার জন্য ফোটে না

পরের জন্য তোমার হৃদয় কুসুমকে প্রস্ফুটিত করিও”

ছোটচাচা তার আপন সুরভি পৃথিবীময় ছড়িয়ে দিয়ে নিভৃতে, নিশ্চুপ-নিঃশব্দে, কাওকে বিন্দুমাত্র বিরক্ত না করে এই ধরাধামের মায়া ত্যাগ করেছেন – যিনি সবার সমস্যা সমাধানে ছিলেন সচেষ্ট, নিজের সমস্যা বা কষ্টের কথা প্রকাশ করেননি কখনও। আরও কিছুদিন বেঁচে থাকলে হয়তো আরও কিছু এই পৃথিবীকে দিতে পারতেন। কালের অতল গহ্বরে একদিন সবাই বিলীন হয়ে যাবে শুধু এ ধরিত্রীর বুকে স্বাক্ষী হয়ে বিরাজ করবে তার কর্মকান্ড-কীর্তি। অসংখ্য শ্রদ্ধাভাজন, বিশ্বের সম্মানিত মহান ও বিশিষ্ট গুনীজনের দোয়া-শুভেচ্ছা-ভালবাসায় সিক্ত পরহিতব্রতী আমার ছোট চাচা যেন পরজগতে ভালো থাকেন মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে এই আমার প্রার্থনা।

এ কেমন চলে যাওয়া -প্রফেসর দিলরুবা জলিল শাহিন

Shared by Latifur Khan on May 5, 2021
এ কেমন চলে যাওয়া

-প্রফেসর দিলরুবা জলিল শাহিন



মানুষ মরণশীল। জীবন থাকলে মরণ আছে। এই অমোঘ সত্য কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। যেতে সবাইকে হবেই। কিছু আগে আর পরে। মানুষের জীবন একসময় এমন এক পর্যায়ে চলে যায় যেখান থেকে জীবন আর ফিরে আসে না, মানুষের ভালবাসা সেখানে পরাস্ত হয়। তবু কিছু কিছু মৃত্যু মেনে নিতে খুব কষ্ট হয়।



যার কথা লিখছি তিনি আমদের অতি আপনজন, অনেক কাছের মানুষ ছোটমামা। আমাদের প্রাণের বন্ধু, যার অকস্মাৎ মৃত্যুসংবাদ শুনে মনে হয়েছিল বুকের পাঁজরের একটা হাড় ভেঙ্গে গেছে। তাকে নিয়ে শৈশব থেকে ২০২১ পর্যন্ত কত ঘটনা-কত স্মৃতি। দেখা হলে একসাথে বসে এসব স্মৃতিচারণ করেছি। মধুর সময় কাটিয়েছি। স্বপ্নেও ভাবতে পারিনি আজ তাকে চিরতরে হারিয়ে তার অবর্তমানে এসব স্মৃতিকথা লিখতে হবে, চোখের জলে-গভীর শোকে। ড. সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, দুর্দান্ত ব্রিলিয়ান্ট, দেশে-বিদেশে যার খ্যাতি, জাতির সম্পদ, তার বিশাল সফল কর্মময় জীবন নিয়ে আমি লিখছি না, আমার চোখের সামনে আছে সেই মানুষটা, আমাদের কালে-সময়ে আমরা একসাথে বেড়ে উঠেছি আনন্দ-বেদনা, সুখ-দুঃখ, ভালো-মন্দ ভাগাভাগি করে ভালবাসাপূর্ণ এক পারিবারিক পরিমন্ডলে।



আমি, আমার আপু (শিরিন) আর ছোটমামা কাছাকাছি বয়সের ছিলাম বলে আমাদের নিজস্ব একটা টিম গড়ে উঠেছিল-স্কুলে পড়া বয়স থেকেই। সে গ্রুপের নিরব টিমলিডার ছিল সদা হাস্যময়, ধৈর্যশীল, সহজ-সরল, সাদামাটা জীবনযাপন করা, অত্যন্ত মেধাবীবন্ধু মাহবুবমামা। শিশুসুলভ সারল্য, পরহিতৈষী মনোভাব তার স্বভাবের আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্য ছিল। প্রয়োজনে বড়ভাই সুলভ শাসন করতো সুকৌশলে। বিশেষ করে পড়াশোনার ক্ষেত্রে। চমৎকার ছবি আঁকত। মানুষ, প্রকৃতি, আশেপাশে যা দেখত একটানে এঁকে ফেলত। ছোটবেলায় তাকে এক এক সময় যাদুকর মনে হত।



আমরা দুইবোন পড়ালেখায় খুব একটা খারাপ ছিলাম না। কিন্তু মামার যে বিষয় বুঝতে মূহুর্তমাত্র সময় লাগতোনা, আমাদের তাতে একটু বেশি সময় লেগে যেত। তার কিছু কারণ ছিল। মন পড়ে থাকতো সাহিত্য-সাংস্কৃতিক চর্চা, খেলাধুলা, আড্ডায়। মামা তাতেও আমাদের সাথে তাল মিলাতো। দেখা যেত সেখানেও তাকে ঠেকানো যেত না। সব কাজেই ছিল সেরার সেরা। প্রথম স্থানটি যেন তার জন্য নির্ধারিত ছিল। অথচ নির্লিপ্ত গোবেচারা ভাব নিয়ে থাকত- যেন কিছুই জানেনা। তার বক্তব্য ছিল জীবনে সবকিছুরই প্রয়োজন আছে কিন্তু পড়াশোনা বাদ দিয়ে না। একে অগ্রাধিকার দিতে হবে। পড়ার কোন বিকল্প নেই। তাই সব কাজের প্রশ্রয় দিলেও পড়ার ব্যাপারে ছিল তার তীক্ষ্ণ নজর। সে কারণে আমাদের ভিতটা বেশ মজবুত করেই গড়ে উঠেছিল তার সান্নিধ্যে থেকে। আমাদের রেজাল্ট ভালো হলে তার আনন্দ আর দেখে কে!



আজ মনে হয় তার পাঠশালার আমরা ছিলাম প্রথম ছাত্র, যাদের মনের সুখে গড়েপিঠে নিয়েছিল। পরে প্রফেসর হয়ে যে টেকনিক প্রয়োগ করতো-তার হাতে খড়ি হয়েছিল আমাদের দিয়েই। আমরা এমন বন্ধু শিক্ষক পেয়ে গর্ববোধ করি। যদিও মেধায় তার ধারেকাছে যাওয়াও সম্ভব ছিলনা, তবে বখে তো যাইনি। আমাদের যা কিছু অর্জন তা মামাদের কাছ থেকেই।



তার বড় বৈশিষ্ট্য ছিল বৃদ্ধ থেকে শিশু বয়সের সবার সঙ্গে তাদের মত করে একাত্ম হয়ে মিশে যাওয়া। তাই সব মহলে ছিল তার সমান জনপ্রিয়তা। ছিলনা কোন অহংবোধ, নিজেকে প্রচার প্রবনতা কিংবা যোগ্যতার দম্ভ। কিন্তু আকাশে চাঁদ উঠলে তার আলো ঢেকে রাখা যায়না, চতুর্দিকে আপনরুপে প্রতিভাত হবেই। নিজের চাইতে অন্যের জন্য ভাবা, তাদের সুযোগসুবিধা দেখার দায় যেন তারই ছিল। শেষবয়স পর্যন্ত তার নড়চড় হতে দেখিনি।



একবার হাতিরপুলে নানীর বাড়ী ক’দিনের জন্য বেড়াতে গেছি আমি আর আপু। সুযোগের অপেক্ষায় থাকতাম কখন স্কুল ছুটি হবে আর ছোটমামার সাথে মজা করে সময় কাটাব। সেবার বর্ষায় হাতিরপুলের কাছের পুকুর বেশ পানিতে পরিপূর্ণ ছিল। মেজোমামা বন্ধুদের নিয়ে গোসল করতে যাবেন। আমরা তিনজন বায়না ধরলাম, আমরাও যাব। মেজোমামা শর্ত দিলেন, “নিতে পারি একশর্তে, তোমরা কেউ পানিতে নামবে না”। রাজি হলাম। আমরা একটু দূরে-ই বসে ছিলাম। তিনজনের কেউ সাঁতার জানিনা। হঠাৎ আমার কি হ’ল, একটু পানি ছুঁয়ে দেখার সাধ হ’ল। আপুও সাথে গেল। হঠাৎ পা পিছলে আমি পানিতে। মনে হচ্ছে হাওয়ায় ভাসছি। পায়ে তলা খুঁজে পাচ্ছিনা; আপুও আমার হাত ধরা, সেও পড়ে গিয়ে একই অবস্থা। এই দেখে ছোটমামা লাফ দিয়ে দু’জনকে বাঁচাতে গেল। সাঁতার নিজেও জানেনা-কিন্তু নিজের জানের পরোয়া না করে চিৎকার করে নেমে আমাদের উদ্ধার করতে গেলো। ভাগ্যিস মেজোমামা দেখে ফেলেছিলেন। তাই সে যাত্রা রক্ষা। নাহয় সেদিনই তিনজনের সলিল-সমাধি হয়ে যেত।  পরে অবশ্য কিছুদিনের মধ্যেই মামা দক্ষ সাঁতারু হয়ে গিয়েছিল। এভাবে, হয় আমরা হাতিরপুলের বাসায় অথবা ছোটমামা আমাদের বাসায়, আমাদের শৈশবের অনেক ধটনার জন্ম হয়েছে। শিরিন-শাহিন ছাড়া তারও ভালো লাগতোনা। মন পোড়ে-বড় মন পোড়ে মামার জন্য। কোথায় হারিয়ে গেল। একা থাকলে কেমন ছটফট করতো- সেই একাই এখন কোথায় কীভাবে আছে- আল্লাহ ছাড়া কেউ বলতে পারে না।



নিজের কোন সমস্যা, কষ্ট, অসুস্থতার কথা বলে কাউকে বিব্রত করতে চাইত না। অথচ অন্যের যে কোন কাজে, প্রয়োজনে, সেবায় ঝাঁপিয়ে পড়ত সবার আগে। মামার ইঞ্জেকশন, কাঁটা-ছেঁড়া, রক্তে ভীতি ছিল। একারণে ব্যথা, যন্ত্রনা সহ্য করতো কিন্তু পারতপক্ষে ডাক্তারের কাছে যেতে চাইত না। একবার আমার ছোটভাই এর (বর্তমান বিচারপতি রাজিক আল জলিল) সুন্নতে খাতনা দেবার জন্য ডাক্তারের কাছে নেয়া হ’ল। আব্বা, বড়মামা, মেজোমামার সাথে ভয় পেলেও নিজ দায়িত্ব মনে করে অনেকটা জোর করেই গেল। কাটাকাটি চলছে। হঠাৎ দেখা গেল ছোটমামা কোথাও নেই। পরে তাকে আবিষ্কার করা হ’ল পাশের একটা চেয়ারের তলায় অজ্ঞান অবস্থায়।



আমার আম্মারা চার ভাই-বোন। আম্মার ছোট তিন ভাই। ভাই-বোনের মধ্যে এমন আত্মিক বন্ধন আমি কমই দেখেছি। একজন আর একজনকে যেন বুক দিয়ে আগলে রাখতো। আজীবন এমনই মায়া-মমতা ছিল তাদের মধ্যে। আমাদের মধ্যে এ ধারা প্রবাহিত হয়েছে। তাই ডালপালা বিস্তার করলেও আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক আরো দৃঢ় থেকে দৃঢ়তর হয়েছে।



আমার নানী সত্যি একজন সার্থক রত্নগর্ভা জননী। মা-ছেলের  মধুর সম্পর্ক উপভোগ করার মত ছিল। ছোট ছেলে বড় হলেও মায়ের কাছে কোলের-শিশুই রয়ে যায়। মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে চলে গেলে, শুধু ভ্যাকেশনে আসা হ’ত। তখন মায়ের আক্ষেপ-“ছেলেটা রোগা হয়ে গেছে, ঠিকমত যত্ন হচ্ছে না” আরও কত কি। মায়ের কষ্ট হবে ভেবে কোন কাজ করতে গেলে হাত থেকে কেড়ে নিয়ে মামা নিজেই করতে চাইতো। গোসলের দৃশ্য ছিল দেখার মত। মা ছেলেকে ঝামা দিয়ে ঘসে গোসল করাতে চাইতেন, আর ছেলে জোর করে মা’কে বাথরুমে ঢুকিয়ে দিয়ে গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকতো। মা বের হলেই ভেজা কাপড় ধোয়ার জন্য টানাটানি-নিজ হাতে কাপড় ধুয়ে আয়রন করে দেবে। নানী খুব পরিচ্ছন্ন-পরিপাটি থাকতেন। নানী কি আর সে সুযোগ দেবেন। খাবার সময়টা ছিল আরো উপভোগ্য। নানী ছেলের পাতে মাছ বা মাংসের বড় অংশ তুলে দেওয়ার সাথে সাথে মায়ের প্লেটে পাচার হয়ে যেত। এই আদান-প্রদান চলতো বহুক্ষণ ধরে। ক্ষুধার যেত বারোটা বেজে।



বড় হবার পরও সেই একই ঘটনা, স্বভাব একটুও বদলায়নি। সবাইমিলে টেবিলে বসলে নিজের প্লেটে খাবার নেবার চেয়ে অন্যসবার প্লেটে খাবার আছে কি-না নিশ্চিত হ’ত আগে। আমাদের পরের প্রজন্ম-তারও পরের প্রজন্ম এসব ঘটনার সাক্ষী। ওরা বেশ এনজয় করে। দেখে দেখে মুখস্ত হয়ে গেছে। তাই সবাই মিলে হুমড়ি খেয়ে পড়ে ঊনার প্লেটে খাবার দেয়, মূহুর্তে তা আশে-পাশে পাস হয়ে যায়। দেখে ওদের সে-কি হাসাহসি। মামা কিন্তু নির্বিকার। তার কাজ সে করেই যাবে।



ঝাঁকে-ঝাঁকে স্মৃতি; শত-সহস্র স্মৃতি রেখে গেছে মামা। কেউ তা খেতে পারবে না- উইপোকাও না। উইপোকা অনেক কিছু খায়, কিন্তু স্মৃতি খেতে পারে না। মামার সাথে কাটানো মূহুর্তগুলো তারার মত জ্বলজ্বল করবে।



কিছু মানুষের জন্ম হয় বুঝি শুধু দেবার জন্য। তার চরিত্র-স্বভাব-কর্মকান্ড-সৃষ্টি তাকে মহিমান্বিত করেছে। নাহয় মৃত্যুর পর এতো মানুষের ভালবাসা, সম্মান পাবার সৌভাগ্য ক’জনের হয়। মামার নিজের এত মূল্যবান সম্পদ থাকা সত্বেও কখনও জাহির না করে বরং মানুষকে খুব সম্মান দিত, কারো মনে কষ্ট দেয়া, পরশ্রিকাতরতা, হিংসাত্মক প্রতিযোগিতা ছিল তার স্বভাব বিরুদ্ধ।



আমি ইউনিভার্সিটিতে পড়ার সময় আবেগতাড়িত হয়ে একটা অনুভুতি প্রকাশ করেছিলাম সাপ্তাহিক বিচিত্রা পত্রিকায়। “আমি মারা গেলে আমাকে নিয়ে কে কি মন্তব্য করে তা জানতে খুব সাধ হয়। তাই কি সম্ভব? তাহলে বেঁচে থাকতে কেন মানুষের মূল্যায়ন হয় না”। এ প্রশ্ন সবার মনে। কিন্তু রীতির কোন পরিবর্তন হয় না। আমরা ঝাঁপিয়ে পড়ি মৃত্যুর পরেই।



মামা কি দেখতে পাচ্ছে কতখানি পাহাড় সমান ভালবাসা গড়ে গেছে মানুষের অন্তরে, তার প্রতি কারো কোন অভিযোগ নেই, থাকার কথাও না। এমনই বিশাল ছিল তার সাম্রাজ্য। জীবনে অনেকখানি সময় বিদেশে কাটালেও দেশের জন্য তার মন ব্যাকুল থাকতো। স্বদেশ প্রীতির উদাহরণ তো আমাদের চোখে দেখা। মুক্তিযুদ্ধের সময় নানীর চোখ এড়িয়ে মুক্তিযোদ্ধা মেজোমামাকে আর তার দলকে কীভাবে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাহায্য করতো সেই অল্প বয়সেই।



মৃত্যুর ক’দিন আগেও ঘন-ঘন ভিডিও কল করে ঘন্টার পর ঘন্টা বিশাল পরিবারের প্রত্যেক সদস্যের সাথে নাম ধরে ডেকে ডেকে চেহারা দেখে কথা বলা চাই। প্রায় প্রতিবছর মামী ও তাহিনকে নিয়ে দেশে আসার চেষ্টা করতো। বড়মামার নির্দেশে তার বাসাতেই উঠতে হতো। পরিবারের সদস্য সংখ্যা অনেক বেড়েছে। কিন্তু বড়মামা আর মামী মহীরুহের মত তাদের ছায়াতলে সবাইকে এক করে ধরে রেখেছেন। ছোটমামাদের কেন্দ্রকরে আমাদের চাঁদের হাট বসতো। তারা যে ক’টাদিন থাকতেন- এয়ারপোর্টে রিসিভ করা থেকে শুরু করে সে ক’দিন থাকতো আমাদের ঈদ উৎসব।



আমার আব্বা, বিচারপতি মোঃ আবদুল জলিল, বয়সে ছোট হলেও বড়মামাকে যেমন প্রধান পরামর্শদাতা মানতেন, অন্য মামাদের প্রতিও ছিল তার অগাধ বিশ্বাস ও নির্ভরতা। আমরা সে বিশ্বাস নিয়ে-ই বড় হয়েছি। ছোটমামাকে তিনি নিজের আর এক সন্তান মনে করতেন। মৃত্যুর একদিন আগে আব্বা, আমার ছোটভাই আশিককে কাছে পেয়ে একান্তে মনের কিছু কথা বলেছিলেন। যে কথাটা খুব স্পর্শকাতর ছিল তা হচ্ছে,“আমি তোমাদের নিয়ে চিন্তা করিনা, নিশ্চিন্তে রেখে যাচ্ছি, কারণ তোমরা মামাদের মত সৎ, নির্লোভ, নির্মোহ হয়েছ। তোমার মামারা তোমাদের জন্য আল্লাহ প্রদত্ত শ্রেষ্ঠ আশীর্বাদ। তাদের হাত কখনো ছেড়োনা”। 



প্রায় চার পাঁচশ সদস্যের উপস্থিতিতে প্রতি বছর ২৫-ডিসেম্বর বড় মামা-মামীর নেতৃত্বে পারিবারিক মিলন-মেলা অনুষ্ঠিত হয়। পর পর দু’বার ছোট মামারা এতে অংশগ্রহন করায় আমাদের আনন্দ আরো বহুগুণিত বেড়ে যায়। সবাই মিলে ছোট মামাকে স্টেজে গান গাইতে উদ্বুদ্ধ করেছিলাম। খুব সাগ্রহে গেয়েছিল। উৎসাহ বেড়ে যাওয়ায় দ্বিতীয়বার মোবাইলে নিজেই একটা কবিতা “আমি এক যাযাবর” সেভ করে নিয়ে এসে সেটা আবৃত্তি করেছিল। কবিতাটি সবার মন স্পর্শ করেছিল। এত উঁচুমাপের একজন মানুষ তার সহজাত স্বভাব দিয়ে, আন্তরিকতা দিয়ে মানুষকে আপন করে নিয়েছিল।



ছোটমামা এসেছে এই উপলক্ষে বড়মামার বাসায় থাকবো আমরা সবাই অর্থাৎ আমাদের ছয় ভাই-বোনের পরিবার সাথে মেজোমামার পরিবার। সে আয়োজন তারা আগেই করে রেখেছেন। বড় বড় মশারি, তোষক, বালিশ কোন কিছুর অভাব নেই। থার্টি-ফার্স্টনাইটে ছাঁদে ফানুস উড়ানো, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্পেশাল খাওয়া-দাওয়া চলছে। রাতের শেষ অংশে ঘরে বসে চলেছে আড্ডা-প্রতিভা বিকাশের প্রতিযোগিতা। সবচেয়ে উপভোগ্য ছিল ছেলে বনাম মেয়েদের দলের অন্তাক্ষরী খেলা। এতবড় উদ্ভাবক, গবেষক-মানুষ গড়ার কারিগর পরিবারের সাথে সময় কাটানোর সময় ছেলেমানুষ হয়ে যেত। ছেলেদের দল জয়ী হয়েছিল- কারণ রাজিক এবং মামার স্টকে প্রচুর গান ছিল। যাবার সময় বলে গিয়েছিল এর পরেরবার আরও গানের লাইন শিখে আসবে  ইউটিউব দেখে। করোনার জন্য আসা বিলম্ব হয়েছিল। বড়মামা কিছুদিন আগেও বলেছিলেন, এর পরেরবার মাহবুবরা এলে সবাই মিলে কক্সবাজার  যাব। মনে হলে বুকের মধ্যে ধক্‌ করে উঠে। মাহবুব মামাকেন্দ্রিক আনন্দ-অনুষ্ঠান চিরতরে বন্ধ হয়ে গেল।



এনেছিলে সাথে করে

মৃত্যুহীন প্রান

মরণে তাহাই তুমি

করে গেলে দান।।